ডাইনোসর বিলুপ্ত হবার সময় সুনামির প্রভাব কেমন ছিল?

65 মিলিয়ন বছর আগে পৃথিবীর সাথে গ্রহাণুর সংঘর্ষের ফলে ডাইনোসর যখন মারা যাচ্ছিল, সেই সময়টি খুব সহজ ছিল না। এক  নতুন গবেষণায় দেখা গেছে, সেই সময় এটি মেক্সিকো উপসাগরের মধ্য দিয়ে প্রায় এক মাইলেরও বেশি সুনামি বিস্ফোরণ ঘটিয়েছিল যার ফলে সারা বিশ্বজুড়ে ব্যাপক বিশৃঙ্খলা শুরু হয়েছিলো।

চিকক্সুলব গ্রহাণু হিসাবে পরিচিত 9-মাইল-জুড়ে (14 কিলোমিটার) স্পেস রক, এই ধ্বংসযজ্ঞ ঘটিয়েছিল, এতে কোনও সন্দেহ নেই যে গ্রহাণুটি ডাইনোসর যুগের পরিসমাপ্তি ঘটিয়েছে, তথাকথিত ক্রিটেসিয়াস-প্যালিওজিন (কে-পিজি) বিলুপ্তির সময়ে।মিশিগান বিশ্ববিদ্যালয়ের আর্থ অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স বিভাগের মাস্টার্স ডিগ্রি অর্জনের সময় গবেষক মলি রেঞ্জ বলেন, “চিক্সুলুব গ্রহাণুটি বিশাল সুনামি ঘটিয়েছিল, যা বর্তমান যুগে আজ পর্যন্ত কখনো ঘটেনি।

রেঞ্জ এবং তার সহকর্মীরা গবেষণাটি উপস্থাপিত করেছেন, যা এখনও আমেরিকান পিওফিজিক্যাল ইউনিয়নের ওয়াশিংটন ডিসি-তে বার্ষিক সভায় 14 জুন পিয়ার রিভিউ জার্নালে প্রকাশ করা হয়নি। গবেষণাযটি প্রথম ইওএস যেভাবে প্রকাশ করে তা অভূতপূর্ব। এই প্রজেক্টের ধারণাটি শুরু হয়েছিলো, যখন রেঞ্জের দুজন উপদেষ্টা মিশিগান বিশ্ববিদ্যালয়ের আর্থ অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্সেস বিভাগে টেড মুর এবং ব্রায়ান আর্বিক অনুধাবন করতে পেরেছিলেন যে, চিক্সুলুব গবেষণার ক্ষেত্রে কোথাও বড় একটি ফাঁক রয়েছে।

গবেষকরা জানতেন যে গ্রহাণুটি মেক্সিকো উপসাগরীয় অঞ্চলের অগভীর জলকে আঘাত করেছিল। কিন্তু তার বিশাল প্রভাবটি সঠিকভাবে বুঝার জন্য, তাদের এমন একটি মডেলের প্রয়োজন ছিল যা “পৃথিবীর ক্রাস্টের বড় আকারের বিকৃতি, যা গর্ত তৈরি করেছিল,পাশাপাশি প্রভাবশালী স্থান থেকে পানির প্রাথমিক বিস্ফোরণ এর ফলে বিশৃঙ্খল তরঙ্গ তৈরি হচ্ছিল। তাই দলটি ব্র্যান্ডন জনসন এর শরণাপন্ন হন যিনি রোড আইল্যান্ডের ব্রাউন ইউনিভার্সিটির একজন সহকারী অধ্যাপক এবং যিনি ইমপ্যাক্ট ক্রিয়েটিং নিয়ে পড়ালেখা করেছেন।

জনসন একটি মডেল তৈরি করেন যা 10 মিনিটের মধ্যে কি ঘটেছিল তা বর্ণনা করে, যখন গর্তটি ছিল প্রায় এক মাইল গভীর (1.5 কিলোমিটার) এবং বিস্ফোরণটি খুব শক্তিশালী ছিল, তখনও সেই গর্তে কোন পানি ছিল না। রেঞ্জ বলেন, “এই সময়ে, কিছু জল গর্তের দিকে ফিরে আসছিল,”। এই মদেল অনুসারে, জল তখন গর্তে ঢুকে পরবে এবং কোলাপ্স ওয়েভ তৈরি করবে।

দ্বিতীয় মডেলে, সারা বিশ্ব জুড়ে মহাসাগরের মাধ্যমে কিভাবে সুনামি কিভাবে ছরিয়ে পরে তা নিয়ে দলটি গবেষণা করে। রেঞ্জ জানায়, তারা প্রথম মডেল (বিশেষ করে ক্র্যাটার আকৃতি) এবং সমুদ্রের স্তর এবং পানির গতি বিশেষের সাথে প্রভাবগুলির ফলাফল তুলনা করেছেন । এরপর তারা সমুদ্রের প্রাচীন ভূখণ্ডে তথ্য ব্যবহার করে এবং সুনামি কীভাবে ছরিয়ে পরে তা নিয়ে গবেষণা করেছেন।

রেঞ্জ বলেন, আমরা দেখেছি এই সুনামি কিভাবে সমগ্র মহাসাগর জুড়ে উপসাগর জুড়ে ছরিয়ে পরে। মেক্সিকো উপসাগরীয় অঞ্চলে জল প্রায় 8২ মাইল জুড়ে (143 কিলোমিটার / ঘন্টা) দ্রুত গতিতে সুনামি চলে আসে। প্রথম ২4 ঘন্টার মধ্যে, সুনামির প্রভাব মেক্সিকো উপসাগর থেকে আটলান্টিকের পাশাপাশি সেন্ট্রাল আমেরিকান সাওওয়ে (যা আর বিদ্যমান নেই, তবে উপসাগরীয় অঞ্চলের সাথে সংযুক্ত আছে) ছড়িয়ে পড়ে।

প্রাথমিকভাবে প্রায় মাইল সমান উঁচু (1.5 কিলোমিটার) তরঙ্গ দেখা যায়, অন্যান্য বিশাল তরঙ্গ বিশ্বের সমুদ্র উপকূলে আঘাত হানে। দক্ষিণ প্রশান্ত মহাসাগর ও উত্তর আটলান্টিকের মধ্যে তরঙ্গগুলি সর্বাধিক 46 ফুট (14 মিটার) উচ্চতায় পৌঁছেছিল। উত্তর প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে তারা 13 ফুট (4 মিটার) পৌঁছেছিল। এদিকে, মেক্সিকো উপসাগরীয় কিছু অঞ্চলের মধ্যে 65 ফুট (২0 মিটার) উচ্চতা এবং অন্যদের মধ্যে 328 ফুট (100 মিটার) উচ্চতর তরঙ্গ দেখা গিয়েছিল। (দক্ষিণ গোলার্ধে রেকর্ড করা সর্বকালের সর্ববৃহৎ আধুনিক তরঙ্গটি ছিল 78 ফুট (23.8 মি) লম্বা, যা ২018 সালের মে মাসে নিউজিল্যান্ডের কাছে আঘাত হানে। )

ধারণা করা হয় এই বড় সুনামিই ডাইনোসর বিলুপ্তির একটি বড় কারন ছিল।

 

Facebook Comments

লেখক সম্পর্কে কিছু তথ্য

রাজমনি পাল জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে পদার্থবিজ্ঞান বিভাগে (অনার্স) অধ্যায়নরত একজন শিক্ষার্থী।তিনি কিউরিয়াস সেভেনের জন্য নিয়মিত বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক আটিকেল লিখেন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

7 + 3 =