কোড সম্পর্কে প্রাথমিক কিছু ধারনা এবং এর প্রয়োজনীয়তা

আজ আমরা কোড বা কোডিং সম্পর্কে খুব সহজ এবং প্রাথমিক কিছু বিষয় নিয়ে আলোচনা করবো। শুরুতেই যে প্রশ্নটা আমাদের মনে জাগে তা হচ্ছে কোড আসলে কি? কম্পিউটার এর সফটওয়ার, বিভিন্ন ধরণের এপস, ওয়েবসাইট সবকিছুই সম্ভব হয়েছে কোডিং এর মাধ্যমে। কম্পিউটার প্রোগ্রামিং এর ক্ষেত্রে কোডিং খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়।

 

কোড হচ্ছে কম্পিউটার বুঝতে পারে এমন বিশেষ ধরণের একটি ভাষা। আমরা চাইনিজ কারো সাথে বাংলায় কথা বললে নিশ্চয়ই তিনি বুঝতে পারবেন না, তার সাথে চাইনিজ ভাষায় কথা বললে কথাগুলো তার বোধগম্য হবে। ঠিক তেমনি কম্পিউটারকে কিছু নির্দেশ দিতে গেলে আমাদের কোডের শরণাপন্ন হতে হবে। কম্পিউটারের অভ্যন্তরে সব কাজই হয়ে থাকে বাইনারি পদ্ধতির মাধ্যমে, অর্থাৎ এবং এর মাধ্যমে। এখানে ০ মানে ফলস্ বা মিথ্যা এবং ১ মানে ট্রু বা সত্য। এটি গঠিত হয়েছে বিদ্যুতের উপস্থিতি এবং অনুপস্থিতির উপর ভিত্তি করে। কম্পিউটার বা ইলেকট্রিক ডিভাইসের অভ্যন্তরে সমস্ত কিছুই ঘটে থাকে এই এবং সিগন্যাল এর মাধ্যমে। আমরা যে সমস্ত সংখ্যা পদ্ধতি ব্যবহার করে থাকি তার মাধ্যমে এসব সিগন্যাল দেয়া প্রায় অসম্ভব।

 

তাই কম্পিউটার এবং ইলেক্ট্রনিক ডিভাইসের বোধগম্য করার জন্য এসমস্ত সংখ্যা, চিহ্ন, প্রতীক, বর্ণ সবকিছুকে বাইনারি পদ্ধতিতে প্রকাশ করা প্রয়োজন। এই সংখ্যা, চিহ্ন, প্রতীক, বর্ণ সবকিছুকে বাইনারি পদ্ধতিতে রুপান্তর করার প্রক্রিয়াকে বলা হয় এনকোডিংঅর্থাৎ আমরা তথ্য বা ডাটা কম্পিউটারে প্রবেশ করালে বা ইনপুট করালে তাকে কম্পিউটারের বোধগম্য করার জন্য বাইনারি পদ্ধতিতে রুপান্তর করে একটি সংকেত প্রদান করা হয়। একেই বলা হয় কোড।

আবার তথ্য ইনপুট করার পর কম্পিউটার বা বিভিন্ন ইলেক্ট্রনিক ডিভাইস আমাদের যে ফলাফল প্রদান করবে তাকে পুনরায় আগের অবস্থায় অর্থাৎ সংখ্যা, চিহ্ন, প্রতীক, বর্ণ এসবে রুপান্তরিত করা হয়। এই প্রক্রিয়াকে বলা হয় ডিকোডিং

 

তাই কম্পিউটারে আমরা যে বিভিন্ন কাজ করি, গান শুনি, গেম খেলি, লিখি, আঁকি, মুভি দেখি সবকিছুই সম্ভব হয়েছে প্রোগ্রামারদের কোডিং করে তৈরি করা সফটওয়্যার এর মাধ্যমে।

 

শুরুর দিকে কোড করা হতো ০ এবং ১ ব্যবহার করেই। যা খুব কঠিন কাজ ছিল। একে বলা হতো মেশিন ল্যঙ্গুয়েজ। পরবর্তীতে একটু উন্নতরূপে এলো অ্যাসেম্বলি ল্যঙ্গুয়েজ। যাতে প্রগ্রামাররা কিছু ইন্সট্রাকশন দিয়ে কোডের কিছু ভাষাকে সহজতর করলেন। বর্তমানে আরও উন্নত প্রোগ্রামিং ল্যঙ্গুয়েজ রয়েছে যা দিয়ে বড় বড় কোড সহজে লিখা যায়। যেমন, সি, সি প্লাস প্লাস, সি শার্প, জাভা, ফরট্রান, বেসিক, পাইথন, পিএইচপি, প্যাসকেল ইত্যাদি।

এবার আসি কিছু বিখ্যাত ব্যক্তিদের কথায়। বিল গেটসকে আমরা সবাই চিনি। বিশ্বের সেরা ধনীদের মধ্যে যার নাম শুরুতেই চলে আসে, তার শুরুটা ছিল কোডিং দিয়ে।ধীরে ধীরে অগ্রগতির মাধ্যমে উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেম এর কোড লিখা শুরু করেন। ল্যারি পেইজ এবং সেগ্রেই ব্রিন মিলে তৈরি করেছিলেন গুগল। যা ছাড়া বর্তমান বিশ্ব আজ অচল। এছাড়া মার্ক জাকারবার্গ, যিনি ক্লাস সিক্স থেকে কোডিং করা শুরু করেন। যার ফসল আজকের ফেসবুক। এছাড়া স্টিভ জবসসহ অনেক বিখ্যাত এবং সফল ব্যক্তিদের শুরুটা হয়েছিলো কোডিং দিয়েই।

Facebook Comments

লেখক সম্পর্কে কিছু তথ্য

রাজমনি পাল জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে পদার্থবিজ্ঞান বিভাগে (অনার্স) অধ্যায়নরত একজন শিক্ষার্থী।তিনি কিউরিয়াস সেভেনের জন্য নিয়মিত বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক আটিকেল লিখেন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

− 7 = 3